ব্যক্তিত্ব ও সমালোচনা

মোস্তাফিজুর রহমান

অন্যের সাফল্য ও উন্নয়ন দেখলে ঈর্ষায় জ্বলে মরি। কারো জনপ্রিয়তায় মুগ্ধ না হয়ে চারিত্রিক খুত বের করতে মরিয়া হয়ে উঠি। ভারী চৌচালা ঘরে মজবুত খুটি না লাগিয়ে ভিত্তি নিয়ে প্রশ্ন তুলি। অন্যের ভিত্তিহীন কথায় একাত্মতা প্রকাশ করে নির্দোষকে দোষী বানাই, আর জঘন্যদের সন্মানের আসনে বসাতে মরিয়া হয়ে উঠি। সমালোচনার বেলায় আমাদের প্রত্যেকের লাগাম কমবেশি অনিয়ন্ত্রিত, যার প্রতিফলন হলো ব্যক্তিত্বের মাপকাঠি।

কে কতটা ব্যক্তিত্বের অধিকারী, তা বাজারের কেনা স্কেল দিয়ে নিরূপণ করা সম্ভব নয়। অকারণেই অন্যের ভিত্তিহীন সমালোচনা যেন আমাদের রক্তকণিকায় মিশে গিয়েছে, যার প্রবাহ আপনা থেকেই প্রভাবিত করে এবং ব্যক্তিত্বের স্তরের ছন্দপতন ঘটায়। এই রোগে আমিও আক্রান্ত বিধায় পরিশুদ্ধতার নিমিত্তে নিজকে ধিক্কার দেই কিন্তু অন্যকে জ্ঞান দেওয়ার লক্ষ্যে কাউন্সেলিং নয়। এটা নিতান্তই আমার জঘন্য বিবেকের দায়মুক্তির ফরিয়াদ ব্যাতিত অন্যকিছু নয়।

ব্যক্তিত্ব কোন দৃশ্যমাণ বস্তু নয় যে, চাইলেই বাজার থেকে কেজিদরে ক্রয় করে চরিত্রের সাথে সংযোজন করা যায়। ব্যক্তিত্ব হলো দৃশ্যমাণ কর্মকান্ডের অদৃশ্য নির্যাস, যা প্রচার প্রচারণা ছাড়াই মানুষকে মর্যাদার আসনে বসাতে প্রধান নিয়ামক হিসেবে কাজ করে। মৃদুভাষী ও বাস্তবসন্মত প্রকাশে যিনি অভ্যস্ত, তিনি কখনও অন্যের ভিত্তিহীন সমালোচনা করতে পারেন না, তিনি যেটা করে থাকেন, তা হলো ব্যক্তির সংঘটিত কর্মের চুলচেরা বিশ্লেষণ, যা আলোচনার একটা অংশমাত্র, যেখানে পক্ষপাতিত্ব ও ভিত্তিহীনতার কোন লেশমাত্র নেই।

যিনি অন্যের মুখরোচক কথায় উদ্দুদ্ধ হয়ে যাচাই-বাছাই ছাড়াই মতামত ও সিদ্ধান্ত দিয়ে থাকেন, তিনি কখনও ব্যক্তিত্বের ধারক নন, তিনি হলেন ভিত্তিহীন সমালোচনাকারী। এরা দিনশেষে ঐ সকল মুখরোচক উড়নচণ্ডীদের বন্ধু বনে যায়। এদের চরিত্রে ব্যক্তিত্বের ছিটেফোঁটাও নেই কিন্তু প্রভাবের বেলায় একাই একশ। এটা ব্যক্তিত্ব নয়, এটা হলো দাপট,যা মানুষকে মনুষ্যত্ব বিলীনের দারস্থ করে।অন্যের দোষত্রুটি নিয়ে মুখ খোলার আগে বিষয়বস্তুর বাস্তবতা যাচাই করেই আমাদের সমালোচনা করা উচিৎ।

অন্যকে যারা কথায় কথায় ভালো নয় বলে মন্তব্য করেন, তাদের চারিত্রিক গুণাবলীতে শুধু সমালোচনার ঝড় আছে কিন্তু ব্যক্তিত্বের প্রভাব নেই। একজন মানুষ সকলের আস্থাভাজন ও প্রিয় হওয়ার সুযোগ নেই। কারণ দৃষ্টিভঙ্গি, চেতনা, বিশ্লেষণ, যোগ্যতা ও নিরপেক্ষতায় আমরা ভিন্ন-ভিন্ন মাত্রার অধিকারী। ব্যক্তি ইমেজের বিষয়ে শতভাগ মানুষের মধ্যে গুটিকয়েকজন গালমন্দ ও ভিত্তিহীন সমালোচনা করলে সেই ব্যক্তি আসলে খারাপ নয়, কারণ অধিকাংশ মানুষ কিন্তু চোখে টিনের চশমা পরে নেই।

দিনশেষে আপনার ব্যক্তিত্বের মূল্যায়ন অন্যের প্রত্যায়ননির্ভর হলেও পক্ষ বিপক্ষের সমীকরণ মিলিয়ে নির্ভয়ে এবং নিঃসংকোচচিত্তে এগিয়ে যান, সফলতা আসবেই। সংখ্যালঘিষ্ট নিন্দুকের ভিত্তিহীন সমালোচনায় থেমে যাবেন না। কারণ অন্যের ভাল কিছু নিন্দুকের জন্য সার্বক্ষণিক বিষফোঁড়া।

মোস্তাফিজুর রহমান। গোপালগঞ্জ। তারিখঃ ১২/০৬/২০২১ ইং।