প্রাকৃতিক বিপর্যয় থেকে মানুষকে রক্ষা করাই আমাদের লক্ষ্য :প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা  বুধবার, ০৫ জুন ২০২৪, ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

বাংলা রিপোর্ট : প্রাকৃতিক বিপর্যয় থেকে দেশ ও মানুষকে রক্ষা করাই আমাদের লক্ষ্য।জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে দেশকে রক্ষায় সবাইকে অন্তত একটি করে হলেও গাছ লাগানোর আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

আজ ৫ জুন বুধবার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বিশ্ব পরিবেশ দিবস ও পরিবেশ মেলা-২০২৪ এবং জাতীয় বৃক্ষরোপণ অভিযান ও বৃক্ষমেলা-২০২৪ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান তিনি। 

শেখ হাসিনা বলেন, প্রাকৃতিক বিপর্যয় থেকে দেশ ও মানুষকে রক্ষা করাই আমাদের লক্ষ্য। সাথে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করা। যে যেখানে পারেন সেখানে অন্তত একটি করে গাছ লাগান।

পরিবেশ প্রতিবেশ রক্ষা করা দেশের প্রতিটি নাগরিকের দায়িত্ব বলে মন্তব্য তিনি। বলেন, সবসময়ই দেশে প্রাকৃতিক দুর্যোগ লেগে থাকে। সেটি থেকে দেশের মানুষকে রক্ষা করাই আমাদের লক্ষ্য।

সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়ছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সাম্প্রতিক ঘূর্ণিঝড়ে মানুষের তেমন কোনো ক্ষতি হয়নি। তবে এবারের মতো এতো দীর্ঘসময় ধরে জলোচ্ছ্বাস এর আগে হয়নি। উপকূলীয় এলাকায় ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় টেকসই ঘর তৈরি করা হচ্ছে।

উপকূলের মানুষদের ঝড় জলোচ্ছ্বাসের হাত থেকে রক্ষা করতে বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথে সরকার আশ্রয়কেন্দ্র তৈরি করেছে বলে জানান তিনি। 

পরিবেশ ধ্বংসে বিএনপিকে দায়ী করে শেখ হাসিনা বলেন, আন্দোলনের নামে বিএনপি-জামাত লক্ষ লক্ষ গাছ কেটে ফেলেছিলো। আওয়ামী লীগ গাছ লাগায় আর বিএনপি তা ধ্বংস করে। আমাদের বৃক্ষরোপণ এবং প্রকৃতি সংরক্ষণ ও উন্নয়ন একটি ধারাবাহিক প্রক্রিয়া।

তিনি বলেন, ২০০১ থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপি-জামায়াত জোট এবং তার পরবর্তী দুই বছর এই ধারাবাহিকতা রক্ষা করা হয়নি। ২০১৩ সালে সরকার উৎখাতের আন্দোলনের নামে মানুষকে যেমন হত্যা করা…তাছাড়া বাস, ট্রাক, গাড়ি, রেল, লঞ্চ, সেগুলো আগুনে জ্বালিয়ে দেওয়া আর বৃক্ষ নিধন করা হয়। 

‘লক্ষ লক্ষ বৃক্ষ কেটে ফেলে দেয় জামায়াত-বিএনপি। আমরা যেখানে গাছ লাগিয়েছে সেগুলো তারা ধ্বংস করেছে। এটাই হচ্ছে দুর্ভাগ্যের বিষয়,’ বলেন প্রধানমন্ত্রী। 

যে কোনো উন্নয়ন পরিকল্পনায় পরিবেশ রক্ষার বিষয়টি গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সুন্দরবন প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে রক্ষা করে। তাই সুন্দরবনকে আরো সুরক্ষিত করা হয়েছে। 

আর কে কী দেবে সে আশায় না থেকে নিজেদের অর্থেই জলবায়ু ট্রাস্ট ফান্ড তৈরি করা হয়েছে মন্তব্য করে সরকার প্রধান বলেন, ভবিষ্যতে প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের হাত থেকে দেশ ও দেশের মানুষকে সুরক্ষিত করা এবং পরিবেশ রক্ষা করাই লক্ষ্য। 

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ব্যক্তি পর্যায়ে প্লাস্টিকের ব্যবহার বন্ধ করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বিকল্প হিসেবে পাটের তৈরি সোনালি ব্যাগ আনা হচ্ছে। যা একবার ব্যবহারের পর মাটির সাথে মিশে যায়। ঢাকা  বুধবার, ০৫ জুন ২০২৪, ২২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১.