পদ্মায় ইলিশ ধরায় ৩৮ জেলেকে কারাদন্ড

বাদশা ভূঁইয়া : কৌশল পাল্টে শেষ রাত থেকে পদ্মা নদীতে নামছে জেলেরা। মাদারীপুর জেলার শিবচরে ইলিশ সংরক্ষণ অভিযানে ইলিশ শিকারের দায়ে ৩৮ জন জেলেকে ১ বছর করে সাজা দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এসময় ৪ কেজি মা ইলিশ জব্দ করা হয়।

৬ অক্টোবর বুধবার দিবাগত রাত ৩টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ১০টা পর্যন্ত শিবচরের পদ্মা নদীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। এ সময় ১৯ হাজার ৮শ’ মিটার কারেন্ট জাল জব্দ করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা গেছে, ইলিশ সংরক্ষণ অভিযানের অংশ হিসেবে পদ্মা নদীর বিভিন্ন স্থানে গভীর রাত থেকে সকাল পর্যন্ত অভিযান চালান ভ্রাম্যমাণ আদালত ও পুলিশের একটি টিম। এসময় পদ্মা নদীতে নিষেধ অমান্য করে ইলিশ শিকার করায় ৩৮ জেলেকে নদী থেকে আটক করে পুলিশ। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে তাদের এক বছর করে সাজা প্রদান করা হয়। এসময় জব্দকৃত ইলিশ ধরার জাল পুড়িয়ে ধ্বংস করা হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) এম রকিবুল হাসান জানান, ‘আমরা অভিযানের শুরু থেকে কঠোরভাবে পর্যবেক্ষণ করছি। জেলেরা অভিযান এড়াতে কৌশল পাল্টে শেষ রাতে নদীতে নামছে বলে খবর আসে আমাদের কাছে। সে মোতাবেক রাত ৩টায় অভিযান চালানো হয়। এসময় অনেক জেলে নৌকার উপস্থিতি দেখতে পাই। ইলিশ শিকার করার অপরাধে তাদের আটক করে সাজা দেয়া হয়। পদ্মায় নিয়মিত আমাদের অভিযান চলবে।

মাদারীপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বাবুল চন্দ্র ওঝা বলেন, ‘৪ অক্টোবর থেকে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুম। তাই সারা দেশে ইলিশ আহরণ, পরিবহণ, মজুত, বাজারজাতকরণ, ক্রয়-বিক্রয় ও বিনিময় বন্ধ থাকবে। যদি কেউ এই আইন অমান্য করে তাহলে জেল-জরিমানা করার বিধান রয়েছে। এবিষয় আমাদের ভ্রাম্যমাণ অভিযান অব্যাহত থাকবে। এরই মধ্যে বেশ কয়েকজন জেলকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আগামীতেও আরো অভিযান চলবে। ৭ অক্টোবর ২০২১.